jatishwor wallpaper news logo

শিবগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার আসামীকে পুলিশ না ধরে টালবাহনা করায় আসমীপক্ষ বাদীকে হুমকী দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।অভিযোগ কারী হলো বাদী রেবিনা বেগম(৪০) ঘটনাটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নাধীন ভবানীপুর কানাবাজার এলাকার।

শিবগঞ্জ থানায় গত ২৭-১০-১৮খ্রী: তারিখে দায়ের কৃত ৫১ নং মামলার বাদী ও মনাকষা ইউনিয়নাধীন ভবানীপুর কানাবাজার গ্রামের আলমের স্ত্রী রেবিনা বেগম জানান,গত ২১-০৭-১৮খ্রী: তারিখ বিকাল ৪টার দিকে ভবানীপুর বনপাড়া গ্রামের একরামের ছেলে জেনারুল (২২) আমার স্কুল পড়ুয়া নাবালিকা কন্যা নাসরিন অরফে ইয়াসমিন(১৩) অসৎ উদ্দেশ্যে অপহরন করে নিয়ে যায়। যা ব্যাবের সহযোগিতায় গত ৩০-০৮-১৮খ্রী: তারিখে ঢাকার মাদারীনগর চট্টগ্রাম রোডের একটি পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে নাবালিকা নাসরিন অরফে ইয়াসমিন(১৩) কে উদ্ধার করে এবং অপহরণকারী জেনারুলকে আটক করে নিয়ে আসে। এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ আমাকে চরম হয়রানী করে। অবশেষে মামলা হলেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সফিউল আলম আসামী পক্ষের সাথে আঁতাত করে আসামী না ধরে বরং আমাকে ও আমার পরিবারকে হুমকী দিচ্ছে। বাদী আরো জানান, সাম্প্রতিককালে তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামী ধরার নাটক দেখিয়ে আসামীর পিতা একরামকে থানায় নিয়ে যায় এবং মোটা অংকের (৩৫ হাজার ছাড়ার জন্য আর ৫ হাজার খরচের জন্য।) টাকা আদায় করেছে। যা আসামীর পিতা একরাম ও তার স্ত্রী প্রতিবেদকের নিকট স্বীকার করেছেন।

তবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সফিউল আলম এ টাকা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মামলার চার্জসিট হয়ে গেছে।এখন আর আমার করার কিছুই নেই। তবে আসামী ধরার জন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু পলাতক থাকায় ধরা যাচ্ছে না। তবে যে কোন মূহুর্তেই আসামী ধরবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here