• হাথুরুসিংহের বিদায়ের পর টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন খালেদ মাহমুদ।
• শ্রীলঙ্কায় শুধু ম্যানেজার হিসেবে থাকবেন মাহমুদ। 

খালেদ মাহমুদ সুজনের পরিচয় অনেক। তিনি একাধারে বিসিবির পরিচালক, গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির প্রধান, ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান, ঘরোয়া ক্রিকেটের তিনটি দল ও একটি একাডেমির কোচ, নির্বাচক কমিটির সদস্য, ক্রিকেটারদের সংগঠন কোয়াবের সহসভাপতি এবং জাতীয় দলের ম্যানেজার। সর্বশেষ ত্রিদেশীয় সিরিজ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে টেকনিক্যাল ডিরেক্টরের আড়ালে তিনিই ছিলেন জাতীয় দলের কোচ। তবে শ্রীলঙ্কায় তিনি ম্যানেজার হিসেবেই যাচ্ছেন। কোচিংয়ের ভারটা কোর্টনি ওয়ালশের কাছে।

শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠেয় নিদাহাস ট্রফির আগে প্রধান কোচ নিয়োগ দেওয়া সম্ভব নয়। সে পদে আপাতত বসানো হয়েছে পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশকে। আর সুজন থাকছেন ম্যানেজার হিসেবেই। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান বলেন, ‘টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে থাকবে না সুজন। সুজন আগের মতোই টিম ম্যানেজার হিসেবে থাকবে। আমিও শ্রীলঙ্কায় যাব, দলের সঙ্গে থাকব।’ মাঝে কিছুদিন পরিবেশ নোংরা হয়ে গেছে বলে সরে দাঁড়ানোর কথাবার্তা শুনিয়েছিলেন মাহমুদ। তবে নাজমুলের আশা, শ্রীলঙ্কায় দলের সঙ্গেই থাকবেন ম্যানেজার।

মাহমুদকে পেলেও মাশরাফিকে পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই বাংলাদেশের। গুঞ্জন উঠেছিল, টি-টোয়েন্টিতে ফেরানো হবে মাশরাফিকে। এ নিয়ে বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ককে ফিরে আশার বার্তাও পাঠিয়েছিলেন বোর্ড সভাপতি। কিন্তু মাশরাফি ফেরেননি। এ নিয়ে নাজমুল বলেন, ‘আগের সিরিজেই ব্যক্তিগতভাবে মাশরাফিকে খেলার জন্য বলেছিলাম। কিন্তু সে কোনো আগ্রহ দেখায়নি। এবারও তার কাছে খবর পাঠানো হয়েছিল। মিডিয়ার মাধ্যমেও জেনেছে। কিন্তু সে সম্পূর্ণভাবে না করে দিয়েছে। সে খেলতে ইচ্ছুক না। এ কারণেই দল ঘোষণার সময় মাশরাফিকে নিয়ে চিন্তা করিনি।’ নিদাহাস ট্রফি শুরু হবে আগামী ৬ মার্চ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here